ঘুম নিয়ে প্রচলিত কিছু ভুল ধারনা

ঘুম নিয়ে প্রচলিত কিছু ভুল ধারনা

Information Tips For Life

ঘুম নিয়ে কিছু ভুল ধারনা আমাদের মাঝে প্রচলিত আছে যা আমাদের শরীরের ওপর অনেক ক্ষতির প্রভাব ফেলছে পাশাপাশি আমাদের আয়ু কমিয়ে ফেলেছে বলে দাবি করছেন অনেক গবেষকরা

ঘুমের ব্যাপারে সমাজের প্রচলিত বিভিন্ন দাবি গুলো নিয়ে নিউইয়র্ক বিশ্ববিদ্যালয়ের একটি দল অনেক গবেষণা করেন। তারা আশা করেন যে ঘুম নিয়ে মানুষকে এমন পুরনো ধারণা ও বিশ্বাসগুলো দূর করে দূর করার ফলে মানুষের শারীরিক ও মানসিক সুস্থতার উন্নতি সাধন করা যেতে পারে। এখন আপনাদের মধ্যে কতজন এ ধরনের ধারণা বিশ্বাস করার জন্য আফসোস করবেন তা কিন্তু আমার জানা নেই।

২৪ ঘন্টায় ৫ ঘন্টা বা তার কম সময় ঘুমালেই যথেষ্ট

যে ধারণাটি সমাজে সবচেয়ে বেশি প্রচলিত তা হচ্ছে দিনে 5 ঘণ্টারও কম সময় ঘুমিয়ে শরীর ভালো রাখা। তবে ব্যবসায় উদ্যোক্তা পর্যায়ে সাফল্যের পিছনে অতিরিক্ত পরিশ্রমের কারণে কম সময়ে ঘুমানোর একটা প্রভাব লক্ষ্য করা গিয়েছে। তবুও গবেষকরা বলেছেন যে পাঁচ ঘণ্টার কম সময়ে ঘুমানোর স্বাস্থ্যকর বলে যে প্রচলিত ধারণা রয়েছে, সেটি ভালো নয় বরং ক্ষতি করে।

গবেষক ড. রেবেকা রবিন্স বলেন, “দিনের পর দিন পাঁচ ঘণ্টা বা তারও কম সময় ঘুমানো যে স্বাস্থ্যের ভয়াবহ পরিণতির ঝুঁকি অনেকগুন বাড়িয়ে দেয়, তার অসংখ প্রমাণ আমাদের কাছে রয়েছে।”

কম ঘুমের জন্য সবচেয়ে বেশি যে সমস্যাগুলো হয় তার মধ্যে হৃদযন্ত্র জনিত বিভিন্ন রোগের ঝুঁকি বাড়িয়ে দেয়। যেমন হার্ট অ্যাটাক, স্টক এবং আয়ুকাল কমে যাওয়া। তাই তিনি বলেছেন রাতে একনাগাড়ে সাত-আট ঘণ্টা ঘুমানোর দিকে লক্ষ্য রাখা উচিত

রাতে ঘুমানোর আগে মদ পান করলে ঘুম ভালো হয়

মদ খেয়ে শরীর ও মনকে শীতল করার এই উপায়টি একদম অর্থহীন। গবেষকরা বলেছেন আপনি এক গ্লাস অ্যালকোহল, হুইসকি বা বিয়ার যাই খান, সেটি মূলত আপনার ঘুমের প্রাথমিকপর্যায়ে অর্থাৎ যে সময় চোখের দ্রুত নড়াচড়া করে সেই স্তর কে বাধা দেয়। সেই স্তরটি স্মৃতিশক্তি বৃদ্ধি ও শেখার জন্য বেশ গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখে। মদ খাওয়ার পর আপনার ঘুম হয়তো ভালো হবে কিন্তু ঘুমের কারণে উপকারগুলো আপনার পাওয়ার কথা ছিল তা আর পাবেন না।
অ্যালকোহল হলো মূত্রবর্ধক পানি ও তাই আপনি যদি মদ খান তাহলে মধ্যরাতে বারবার টয়লেটে যাওয়ার ঝামেলা আপনাকে বিরক্ত করে তুলতে পারে।

শরীরকে শিথিল করতে বিছানায় শুয়ে টিভি দেখা

অনেকে ভেবে থাকেন যে রাতে ঘুমানোর আগে শরীরকে শান্ত করার জন্য কিছুক্ষণ শুয়ে কিছুক্ষণ টিভি দেখে নেই। কিন্তু এতে আপনার শরীর ও আপনার ঘুমের জন্য খারাপ হতে পারে। ডাঃ রবিনস বলেছেন আমরা যদি রাতের বেলা টিভি দেখি তাহলে প্রায়ই রাতের খবর গুলো দেখা হয়, যা আপনার মানসিক চাপ বাড়িয়ে দেয় এবং সেইসঙ্গে অনিদ্রা বা ইনসমনিয়া রোগ হতে পারে। আপনি শীতের হওয়ার জন্য টিভিতে দেখলেও তা আপনার অনিদ্রার কারণ হয়ে যেতে পারে।

টিভির পাশাপাশি স্মার্টফোন ট্যাবলেট এর মধ্যে অন্তর্ভুক্ত। এই ডিভাইসগুলোর মদ্ধ থেকে যে নীল আলো বের হয় তা ঘুমের হরমোন মেলাটোনিন উৎপাদন করতে বাধা দেয় ।

রাতে ঘুম আসছে না চাইলেও বিছানায় শুয়ে থাকুন

যদি আপনি বিছানায় ঘুমাতে যাওয়ার পর ঘন্টার পর ঘন্টা চলে যায় তাও আপনার ঘুম না আসে তাহলে জেনে রাখুন, একজন সুস্থ মানুষের ক্ষেত্রে বিছানায় যাওয়ার ১৫ মিনিটের মধ্যে ঘুম চলে আসে। যদি এরপরেও আপনার ঘুম না আসে তাহলে পরিবেশ পরিবর্তন করুন এবং এমন কিছু চিন্তা করুন যা ভাবতে আপনার মস্তিষ্কের ওপর তেমন কোনো চাপ পড়ে না। এরপরও যদি কাজ হয় তাহলে ডাক্তারের শরনাপন্ন হন।

রাতে ঘুমানোর সময় নাক ডাকাতে কোন ক্ষতি নেই

নাক ডাকাতে কোন বড় ধরনের কোনো ক্ষতি না হতে পারে তবে একটি স্লিপ অ্যাপনিয়া রোগের লক্ষণ হতেও পারে। এই রোগের কারণে আমাদের আমাদের ঘুমের সময় কিছু সময়ের জন্য শ্বাস নিতে কষ্ট হয় যার কারণে নাক ডেকে থাকে।
এই মানুষগুলোর উচ্চ রক্তচাপ, অনিয়ন্ত্রিত হৃৎস্পন্দন এমনকি হার্ড স্ট্রোকের ঝুঁকি থাকে। তবে এই নাগ ডাকা যদি খুব বেশি জোরে হয় তবে একটু সতর্ক হতে হবে।
আপনি আপনার শরীরকে ভালো রাখার জন্য যেসব কাজ করে থাকেন তার মধ্যে ঘুম হচ্ছে সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ একটি বিষয়

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *